• Home /Exam Details (QP Included) / Preliminary Exam / Indian Polity & Economy / শেয়ার বাজার – Important Concept Of Economy – W.B.C.S. Exam.
  • শেয়ার বাজার – Important Concept Of Economy – W.B.C.S. Exam.
    Posted on June 18th, 2020 in Indian Polity & Economy
    Tags: , ,

    শেয়ার বাজার – Important Concept Of Economy – W.B.C.S. Exam.

    By Dipayan Ganguly, WBCS Gr A

    জমি থেকে শুরু করে জাহাজ পর্যন্ত বিক্রি হয় , তাহলে শেয়ার কেন হবে না? শেয়ার কি? কেন? মাধ্যমিকে পার্টনার্শিপের অঙ্কগুলি কষোনি? ওই যে কয়েকজন বন্ধু মিলে ব্যবসা শুরু করল, তাদের মূলধনের অনুপাত।Continue Reading শেয়ার বাজার – Important Concept Of Economy – W.B.C.S. Exam.

    কোনো কোম্পানি চালাতে প্রচুর টাকা লাগে। কারণ, জমি কিনে কারখানা তৈরি থেকে কাঁচামালের আমদানি ইত্যাদির জন্য যে পরিমাণ টাকার প্রয়োজন, অত টাকা তো ব্যাঙ্ক কাউকে মুখ দেখে ধার দেবে না, সবাই তো আর নীরব মোদি বা বিজয় মাল্য নয়।

    তাহলে উপায়? কেন? পাবলিক আছে যে। সকলে মিলে চাঁদা তুলে কোম্পানিকে দেবে। তাহলে পাবলিকের লাভ কোথায়? ওই যে কোম্পানি ৩ মাস অথবা বছরের শেষে যা মুনাফা করবে, তার অংশীদার হবে শেয়ার হোল্ডারেরা, অর্থাৎ কোম্পানির ডিরেক্টরদের পাশাপাশি আম আদমিও যারা শেয়ার কিনেছে। এই লভ্যাংশ কে বলে dividend

    তা শেয়ার কোথায় কেনাবেচা হয়? শেয়ার বাজারে। প্রায় সমস্ত মেট্রো শহরে শেয়ার বাজার আছে, যদিও বম্বে স্টক এক্সচেন্জ এবং ন্যাশনাল স্টক এক্সচেন্জ টি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এর সূচকের ওঠানামার ওপর অনেকের রুজিরুটি নির্ভর করে।

    সূচক কি?

    এটি জানবার আগে আমাদের মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন সম্পর্কে জানতে হবে। মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন কি? ধর, তোমার একটি কোম্পানি আছে যার শেয়ার SEBI অনুমোদন পাওয়ার পরে বাজারে কেনাবেচা হচ্ছে। ধর মোট ১০০০ টি শেয়ার রয়েছে এবং প্রতিটি শেয়ার ৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাহলে তোমার কোম্পানির মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন হচ্ছে ১০০০*৫ = ৫০০০/-। এই মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন যার যত বেশি, শেয়ার বাজারে বা অর্থনীতিতে সে তত বড় হনু।

    বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে ৩০ টি হনু কোম্পানির, অর্থাৎ যাদের মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন অনেক বেশি, এদের মোট

    মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন যোগ করা হল। ধর সেটি হল ১০০০০০ টাকা। এবারে এই ১০০০০০ এর পরিপ্রেক্ষিতে সহজ গণনার জন্য এর নতুন মান নির্ধারণ করলাম, ধর সেটিকে স্থির করলাম ১০০০ এ। এটি হল সূচক, যা বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে SENSEX বা sensitive index নামে পরিচিত। এবারে আগামী কাল শেয়ার দাম হেরফের হয়ে সেই ৩০ টি কোম্পানির মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন দাঁড়াল ১০৫০০০ এ, অর্থাৎ ৫ শতাংশ বাড়ল। তাহলে ১০০০ এর সূচকটিও ৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়াল ১০৫০ এ। এইভাবে প্রতিদিন সূচকের ওঠানামা দেখে বুঝতে পারব যে শেয়ার বাজার কেমন চলছে। সূচক অনেকটা বাড়লে আমরা সেই বাজারকে বলব Bull market । এর উল্টোটি হলে বাজারকে বলব Bear market।

    বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে যেমন ৩০ টি হনু কোম্পানি নিয়ে তৈরি হয় SENSEX, তেমনি ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে ৫০টি কোম্পানির শেয়ারের ওপর ভিত্তি করে সূচক তৈরি হয়, যার নাম NIFTY বা National Fifty।

    এবারে প্রশ্ন হল, শেয়ার কিনতে কি তাহলে আমাকে শেয়ার বাজার যেতেই হবে? না, কারণ আজকাল অনলাইনে শেয়ার কেনাবেচা বেশি হয়। কিভাবে? Brokerage firms যেমন ICICI direct, Kotak securities, India infoline ট্রেডার বা বিনিয়োগকারী পাবলিকের থেকে দালালি নিয়ে আম আদমিকে ঘরে বসে শেয়ার কেনাবেচার সুযোগ করে দেয়।

    শেয়ার কিভাবে কেনাবেচা হয় তাহলে? যারা শেয়ার কিনতে চায় তারা একটি দাম হাঁকে, এটিকে Bid price বলে। যারা শেয়ার বেচতে চায় তারাও একটি দর হাঁকে যেটিকে Offer price বলে। অর্থাৎ শেয়ারগুলি নিলামে ওঠে। সাধারণত Total Bid quantity যদি Total offer quantity এর চাইতে বেশি হয় তাহলে শেয়ার দাম ঊর্ধমুখী হয়। আবার উল্টোটা হলে দাম পড়ে যায়। এখানেও চাহিদা যোগান রয়েছে, তবে কিনা শেয়ার বাজারে বড় বড় দালালেরা নিয়ন্ত্রণ করে, তাই অনেক সময় দাম বাড়তে গিয়েও সেরকম বাড়ে না , কমতে গিয়েও কমে না।

    একবার শেয়ার কিনে তুমি যখন খুশি বেচতে পার, যদি সম্পূর্ণ টাকা দিয়ে এটি কেন। এর মানে কি? নিজের সম্পূর্ণ টাকা না থাকলেও কেনা যায় কি? হ্যাঁ যায়, এই উপায়কে Margin trading বা intraday trading ও বলা হয়। ধর ১০০০ টি শেয়ার তুমি কিনতে চাও যার প্রতিটির মূল্য ১২০ টাকা। অর্থাৎ হিসাবমত ১২০০০০ টাকা লাগবে। কিন্তু তোমার কাছে রয়েছে ৩০০০০ টাকা। এইবার তোমার দালালটি ৩ গুণ অবধি leverage দিয়ে তোমাকে সাহায্য করল , অর্থাৎ বাকি ৯০০০০ টাকা ধার দিল। দিনের শেষে শেয়ারগুলি ১২৫ টাকা দরে বিক্রি করে দিলে। মোট বিক্রয়মূল্য দাঁড়াল ১২৫০০০। তাহলে তোমার মুনাফা কত? ৫০০০ টাকা। এই টাকা তোমার কাছে চলে এল এবং দালাল তার দালালি মারফত কিছু নিজের পকেটে পুরল। এবারে যদি তোমার ক্ষতি হত, তাহলে তোমার সেই ৩০০০০ থেকে ক্ষতি ও দালালি কেটে বাকিটুকু ফেরত পেতে।

    শেয়ার বাজারে intraday তে তুমি আগে শেয়ার বেচে পরে কিনতে পার। যাঃ বাবা, তাও আবার হয় না কি। হ্যাঁ, ফাটকাবাজিতে সবই সম্ভব। এটিকে বলে short sell বলে। ধর তোমার মনে হল বাজার খারাপ, শেয়ারটির দাম দিনের শেষে পড়ে যাবে। কাজেই দিনের শুরুতে Margin trading বা intraday trading করে তুমি বেচে দিলে। পরে সেই open positions গুলি পরে কিনে নিলে কম দামে। এতে তোমার কাছে শেয়ার এল না ঠিক, শুধু দামের হেরফেরে তুমি টাকা কামিয়ে নিলে। আর তোমার দালাল leverage দিয়ে নিজেও টাকা করে নেয়।

    Please subscribe here to get all future updates on this post/page/category/website

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

     2019 2019 2019